ইপ্রাজল(Eprazol 20) কিসের কাজ করে ?

ইপ্রাজল(Eprazol 20)

ইসোমিপ্রাজল(Esomeprazole)

ইপ্রাজল(Eprazol 20) কিসের কাজ করে ?


সূচিপত্র :

উপাদান , ফার্মাকোলজী , নির্দেশনা ,মাত্রা ও সেবনবিধি , প্রতিনির্দেশনা ,গর্ভাবস্থায় ও স্তন্যদানকালে ব্যবহার , শিশু ও বয়ঃসন্ধিকালে ব্যবহার , ওষুধ আন্তঃক্রিয়া : মাত্রাধিক্য , সংরক্ষণ , সরবরাহ এবং দাম ।

উপাদান :

ইপ্রাজল ২০ ক্যাপসুলঃ প্রতিটি ক্যাপসুলে আছে ইসোমিপ্রাজল ম্যাগনেসিয়াম ট্রাইহাইড্রেট ইউএসপি২২.২৬ মি.গ্রা., যা ইসোমিপ্রাজল ২০ মি.গ্রা এর সমতুল্য ।

ইপ্রাজল ৪০ ক্যাপসুলঃ প্রতিটি ক্যাপসুলে আছে ইসোমিপ্রাজল ম্যাগনেসিয়াম ট্রাইহাইড্রেট ইউএসপি৪৪.৫২মি.গ্রা., যা ইসোমিপ্রাজল ৪০ মি.গ্রা এর সমতুল্য।

ফার্মাকোলজী :

ইসোমিপ্রাজল ওমিপ্রাজলের একটি এস-আইসোমার। এটি একটি প্রোটন পাম্প প্রতিরোধক যা গ্যাস্ট্রিকপ্যারাইটাল কোষের H+/K+-ATPase এনজাইমকে সুনির্দিষ্টভাবে বাধা প্রদানের মাধ্যমে গ্যাস্ট্রিক এসিড নিঃসরণ কমিয়ে দেয়। ইসোমিপ্রাজল সুনির্দিষ্টভাবে প্রোটন পাম্পের উপর কাজ করে, এসিড উৎপাদনের শেষ ধাপকে বাঁধা দেয়ার মাধ্যমে গ্যাস্ট্রিক এসিডিটি হ্রাস করে।

নির্দেশনা:

• গ্যাস্ট্রো ইসোফেগাল রিফ্লাক্স রোগে (ইরোসিভ রিফ্লাক্স ইসোফেগাইটিস এর উপস্থিতিতে)

• গ্যাস্ট্রো ইসোফেগাল রিফ্লাক্স রোগের লক্ষণ চিকিৎসায় (ইসোফেগাইটিস এর অনুপস্থিতিতে)

NSAID জনিত গ্যাস্ট্রিক আলসারে

• Helicobacter pylori জনিত ডিওডেনাল আলসারে

• জলিঞ্জার-এলিসন সিনড্রোমে

মাত্রা ও সেবনবিধি :

ইসোমিপ্রাজল খাওয়ার ১ ঘন্টা আগে সেবন করা উচিত। রোগের ধরণ অনুযায়ী নির্দেশিত মাত্রা ও সেবনবিধিঃ

• গ্যাস্ট্রো ইসোফেগাল রিফ্লাক্স রোগে (ইরোসিভ রিফ্লাক্স ইসোফেগাইটিস এর উপস্থিতিতে) ৪০ মি.গ্রা. করে দৈনিক এক বার ৪ সপ্তাহ পর্যন্ত, রোগ পুরোপুরি সেরে না গেলে অথবা উপসর্গ বিদ্যমান থাকলে আরো ৪ সপ্তাহ চালিয়ে যেতে হবে।

• গ্যাস্ট্রো ইসোফেগাল রিফ্লাক্স রোগের লক্ষণ চিকিৎসায় (ইসোফেগাইটিস এর অনুপস্থিতিতে)২০মি.গ্রা. করে দৈনিক এক বার ৪ সপ্তাহ পর্যন্ত, পরবর্তীতে প্রয়োজনীয়তার উপর ভিত্তি করে দিনে ২০ মি.গ্রা. করে গ্রহণ করতে হবে।

• NSAID জনিত গ্যাস্ট্রিক আলসারে ২০ মি.গ্রা. করে দৈনিক একবার ৪-৮ সপ্তাহ পর্যন্ত।

• ডিওডেনাল আলসারে Helicobacter pylori নির্মূলে

প্রাপ্ত বয়স্কদের ক্ষেত্রে Helicobacter pylori প্রতিরোধে নির্দেশিত নিয়মাবলীঃ

• জলিঞ্জার-এলিসন সিনড্রোমে প্রাথমিকভাবে ৪০ মি.গ্রা. করে দৈনিক দুইবার, রোগ নিরাময়ের উপর ভিত্তি করে প্রতিদিন ৮০-১৬০ মি.গ্রা. মাত্রা নির্ধারণ করতে হবে ।

গ্যাস্ট্রো ইসোফেগাল রিফ্লাক্স রোগে শিশুদের ক্ষেত্রেঃ

স্বল্প মেয়াদী চিকিৎসাঃ ১-১১ বছরঃ ১০ মি.গ্রা. করে দৈনিক একবার ৮ সপ্তাহ পর্যন্ত, ১২-১৭ বছর ২০-৪০ মি.গ্রা. করে দৈনিক একবার ৮ সপ্তাহ পর্যন্ত।

সেবন পথ : ক্যাপসুল মুখে গ্রহণ করতে হবে।

প্রতিনির্দেশনা:

ইসোমিপ্রাজল এবং এর যে কোন উপাদানের প্রতি অতিসংবেদনশীল রোগীর জন্য এটি প্রতিনির্দেশিত।

সতর্কতাঃ

উপসর্গ নিরাময়ে ইসোমিপ্রাজলের চিকিৎসা গ্যাস্ট্রিক মেলিগনেন্সির উপস্থিতি নিবারণ করে না।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াঃ

ক) সাধারণ : মাথাব্যথা, পেটফাঁপা, বমি বমি ভাব, পেটব্যথা, ডায়রিয়া, মুখের শুষ্কতা, মাথা

ঝিমঝিম/মাথা ঘুরানো এবং কোষ্ঠকাঠিন্য ।

খ) বিরল : আক্রমণাত্মক আচরণ, মানসিক ভাবে উত্তেজিত, রক্তস্বল্পতা, ঝাপসা দৃষ্টি, হাড় এর ভঙ্গুরতা

এবং ব্রঙ্কোম্পাজম।

গর্ভাবস্থায় ও স্তন্যদানকালে ব্যবহার :

প্রেগনেন্সি ক্যাটাগরি সি। গর্ভাবস্থায় ইসোমিপ্রাজল সেবনের কোনো পর্যাপ্ত ও প্রতিষ্ঠিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

ইসোমিপ্রাজল মাতৃদুগ্ধে নিঃসৃত হয় কিনা তা এখনও প্রতিষ্ঠিত নয়। মায়ের জন্য অপরিহার্যতার কথা বিবেচনা করে দুগ্ধদান বা ওষুধ নেয়া থেকে বিরত থাকার সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

শিশু ও বয়ঃসন্ধিকালে ব্যবহার :

১-১৭ বছর বয়সের ক্ষেত্রে গ্যাস্ট্রো ইসোফেগাল রিফ্লাক্স রোগের স্বল্প মেয়াদী চিকিৎসায়

ইসোমিপ্রাজলের নিরাপত্তা ও কার্যকারিতা প্রতিষ্ঠিত।

ওষুধ আন্তঃক্রিয়া :

ক) অন্য ওষুধ এর সাথে প্রতিক্রিয়া : ইসোমিপ্রাজল গ্যাস্ট্রিক এসিড নিঃসরণ কমিয়ে দেয়। তাই যেসব ওষুধ যেমন কিটোকোনাজল, আয়রন সল্ট এবং ডিগক্সিন এর বায়োএভেইলেবিলিটি গ্যাস্ট্রিক pH এর উপর নির্ভরশীল তাদের শোষণ ইসোমিপ্রাজল দ্বারা প্রভাবিত হতে পারে।

খ) খাবার ও অন্য কিছুর সাথে প্রতিক্রিয়া : খাবার দ্বারা ইসোমিপ্রাজল এর শোষণের ব্যাঘাত ঘটতেপারে। ইসোমিপ্রাজল খাবারের এক ঘণ্টা আগে গ্রহণ করতে হবে।

মাত্রাধিক্য :

অতিরিক্ত মাত্রা গ্রহণের ফলে তীব্র পেটে ব্যথা, কফি রঙের বমি, শ্বাস কষ্ট, প্রচন্ড ঘুম ঘুম ভাব এবংঅচেতনতা দেখা দিতে পারে।

সংরক্ষণ :

৩০° সে. তাপমাত্রার নিচে, আলো ও আর্দ্রতা থেকে দূরে রাখুন। সকল ওষুধ শিশুদের নাগালের বাইরে রাখুন।




সরবরাহ:

ইপ্রাজল ২০ ক্যাপসুলঃ প্রতি বাক্সে রয়েছে ১০ X ১০ টি ক্যাপসুল, অ্যালু-অ্যালু রিস্টার প্যাকে।

ইপ্রাজল ৪০ ক্যাপসুলঃ প্রতি বাক্সে রয়েছে ৫ × ৬ টি ক্যাপসুল, অ্যালু-অ্যালু রিস্টার প্যাকে।

দাম :

ইপ্রাজল ২০ ক্যাপসুল ১টির দাম মাত্র ৭ টাকা এবং ৪০ ক্যাপসুল ১টির দাম মাত্র ১০ টাকা


Post a Comment (0)
Previous Post Next Post